প্রানীর দেহে বট মাছির বংশ বৃদ্ধি!
লিখেছেন প্রশান্ত চিত্ত, মার্চ ৩০, ২০১৪ ১০:২৯ অপরাহ্ণ

অনেক বছর আগে টিভিতে ‘X-Files’ নামে একটা  ইংলিশ ধারাবাহিক দেখতাম। আজব আজব অথচ জীবন্ত কিছু স্টোরি নিয়ে ওরা ওদের পর্বগুলো সাজাত। বেশ লাগত। তবে দেখতে দেখতে কখন যে শরীর হিম হয়ে আসত টের পেতাম না। কোন এক পর্বে দেখেছিলাম তেলাপোকা, শুয়োপকার মত এসব গায়ে কাঁটা দেয়া কিছু প্রানী মানুষের গায়ের চামড়া ভেঁদ করে  দেহের ভিতরেই ওইগুলা বংশ বিস্তার শুরু করে দিত।থাক আর না বাড়িয়ে আসল কথায় এগোই।

বট মাছির বংশ বৃদ্ধি ! 
ছবিটি দেখলে কেমন গা গুলিয়ে ওঠে । আমরা সবাই জানি মাছি বিভিন্ন রোগ জীবাণু ছড়াতে ওস্তাদ । কিন্তু এই বট মাছি (Bot fly) তার চেয়েও এক ধাপ এগিয়ে । বট মাছি নামের এই মাছিটির বংশ বৃদ্ধি অত্যন্ত ভয়ংকর রকমের প্রক্রিয়ায় হয় । এরা নিজেদের বংশ বৃদ্ধির জন্য বেঁছে নেয় অন্য কোন প্রাণীর শরীর এমনকি মানুষও ।  বট মাছি ডিম ছাড়ার জন্য ও ডিম ফুটে বেরন বাচ্চার খাবারের জন্য সহজ উপায় স্বরূপ অন্যের ত্বক ফুট করে তাতে এক বা একাধিক ডিম ছেড়ে দেয় । তারপর ডিম বহন কারী শরীর থেকে তাপ নিয়ে সেই ডিম ফুটে লার্ভা জন্ম হয় । লার্ভা বহন কারীর শরীরের অংশ খেয়ে বড় হতে থাকে এবং পূর্ণ বয়স হলে বট মাছির ডিম পাড়বার সময়কার সেই ফুটো দিয়ে বেড়িয়ে আসে । প্রক্রিয়াটি খুব সহজ মনে হলেও ডিম ও লার্ভা বহন কারী সেই প্রাণীটির জন্য তা মোটেও সুখকর নয় । বট মাছির বংশ বৃদ্ধির এই পদ্ধতির ফল স্বরূপ  সেই প্রাণীটিকে ত্বকে অসহ যন্ত্রণা সহ্য করতে হয় । অনেক সময় সেই প্রাণীটিকে প্রাণ পর্যন্ত দিতে হয় ।   
এদের ত্বকের নিচ থেকে বের করে আনা সহজ নয় । কেননা খুঁচিয়ে বের করার চেষ্টা করতে গেলে লার্ভা ভীতরেই মরে যেতে পারে ফলে ক্ষততে সংক্রামণ হতে পারে । তাই সাধারণত মানুষ বট মাছির লার্ভা চামড়ার নিচ থেকে বের করতে ডিম পাড়ার জন্য বট মাছির করা ফুটোতে প্রলেপ দিয়ে রাখে যাতে ফুটো দিয়ে কোন ভাবে অক্সিজেন ভীতরে যেতে না পারে । ফলে লার্ভা শ্বাস বন্ধ হয়ে মারা যায় । এর পর খুব সতর্কতার সাথে লার্ভা টেনে বের করতে হয় । সাবধান থাকতে হয় যেন মরা লার্ভা ভীতরে ছিড়ে না যায় । 
সত্যি ভয়ঙ্কর এর বংশ বৃদ্ধি । তাই বট মাছি থেকে সাবধান । এদের বসবাস দক্ষিণ অ্যামেরিকায় । 

লেখা- ঋজু আজম
তথ্য ও ছবি – ইন্টারনেট

গা গুলিয়ে ওঠা ছবিটি দেখুন। আমরা সবাই জানি মাছি বিভিন্ন রোগ জীবাণু ছড়াতে ওস্তাদ। এই বট মাছি (Bot fly) তার চেয়েও এক ধাপ এগিয়ে ।  বট মাছি নামের এই মাছিটির বংশ বৃদ্ধি অত্যন্ত ভয়ংকর রকমের প্রক্রিয়ায় হয় । এরা নিজেদের বংশ বৃদ্ধির জন্য বেঁছে নেয় অন্য কোন প্রাণীর শরীর এমনকি মানুষও । বট মাছি ডিম ছাড়ার জন্য ও ডিম ফুটে বেরন বাচ্চার খাবারের জন্য সহজ উপায় স্বরূপ অন্যের ত্বক ফুটো করে তাতে এক বা একাধিক ডিম ছেড়ে দেয় । তারপর ডিম বহন কারী শরীর থেকে তাপ নিয়ে সেখানেই ডিম ফুটে লার্ভা জন্ম হয় ।

লার্ভা বহন কারীর শরীরের অংশ খেয়ে বড় হতে থাকে এবং পূর্ণ বয়স হলে বট মাছির ডিম পাড়বার সময়কার সেই ফুটো দিয়ে বেড়িয়ে আসে । প্রক্রিয়াটি খুব সহজ মনে হলেও ডিম ও লার্ভা বহন কারী সেই প্রাণীটির জন্য তা মোটেও সুখকর নয় । বট মাছির বংশ বৃদ্ধির এই পদ্ধতির ফল স্বরূপ সেই প্রাণীটিকে ত্বকে অসহনীয় যন্ত্রণা সহ্য করতে হয় । অনেক সময় সেই প্রাণীটিকে প্রাণ পর্যন্ত দিতে হয় ।

এদের ত্বকের নিচ থেকে বের করে আনা সহজ নয় । কেননা খুঁচিয়ে বের করার চেষ্টা করতে গেলে লার্ভা ভীতরেই মরে যেতে পারে ফলে ক্ষততে সংক্রামণ হতে পারে । তাই সাধারণত মানুষ বট মাছির লার্ভা চামড়ার নিচ থেকে বের করতে ডিম পাড়ার জন্য বট মাছির করা ফুটোতে প্রলেপ দিয়ে রাখে যাতে ফুটো দিয়ে কোন ভাবে অক্সিজেন ভীতরে যেতে না পারে । ফলে লার্ভা শ্বাস বন্ধ হয়ে মারা যায় । এর পর খুব সতর্কতার সাথে লার্ভা টেনে বের করতে হয় । সাবধান থাকতে হয় যেন মরা লার্ভা ভীতরে ছিড়ে না যায় । সত্যি ভয়ঙ্কর এর বংশ বৃদ্ধি ! তাই বট মাছি থেকে সাবধান । তবে খুব ভয়ের কিছু নেই।এদের  বসবাস সাধারনত দক্ষিণ আমেরিকায়।।

তথ্য ও ছবিঃ ইন্টারনেট।

পোস্টটি ১৮৬২ বার পঠিত
 ০ টি লাইক
২ টি মন্তব্য
২ টি মন্তব্য করা হয়েছে
  1. ভয়ংকর! শেষ লাইনটা পড়ে শান্তি পেলাম

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.