ভিক্ষুক অথবা ভাসমান পরিবার দেখা মাত্র তাদের পুনর্বাসন করতে ‘কড়া নির্দেশ’ প্রধানমন্ত্রীর
লিখেছেন ওসি সাহেব, জানুয়ারি ২, ২০১৬ ৭:০৬ অপরাহ্ণ

0,,17800534_304,00

রাস্তার পাশে মানবেতর জীবনযাপন করা মানুষদের নিজ গ্রামে পুনর্বাসন করবে সরকার। প্রথমে তাদের সরকারি জমিতে পুনর্বাসন করা যায় কিনা তা দেখা হবে। প্রয়োজনে সরকারের পক্ষ থেকে তাদের ছয় মাসের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সেই সাথে ভিক্ষাবৃত্তি বন্ধ ও ফুটপাতে বসবাসকারীদের পুনর্বাসন করতে এবার সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শনিবার রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে জাতীয় সমাজসেবা দিবস ও সমাজসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এই নির্দেশ দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, যাদের ঘরবাড়ি নেই তাদের আমরা বিনামূল্যে বানিয়ে দেব, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেব। কিন্তু কেউ ভিক্ষাবৃত্তি করতে পারবে না।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাস্তায় ও ফুটপাতে ভিক্ষুক ভাসমান পরিবার দেখা মাত্র তাদের পুনর্বাসন করবেন।

আগামী ২০২১ সালের মধ্যে দেশের দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ১৪ শতাংশে নামিয়ে আনার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যতা মুক্ত দেশ গড়ার জন্য সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা এতিমদের দিতে এসেছি। কারণ, আমরা নিজেরাও বাবা-মা হারিয়ে এতিম হয়েছি। এতিম হওয়ার কষ্ট আমি আর রেহানা ছাড়া মনে হয় আর কেউ বেশি জানে না। শেখ হাসিনা আরও বলেন, এতিমদের দায়িত্ব আমরা নিয়েছি, আওয়ামী লীগ সরকার নিয়েছে, আমি নিয়েছি। প্রত্যেকের জীবনমান উন্নয়ন- এটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। সমাজসেবা রাজনীতিকদের দায়িত্ব- এ কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের রাজনীতির মূল লক্ষ্য সমাজের সেবা করা। সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কল্যাণে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধামমন্ত্রী বলেন, প্রতিবন্ধী মানুষদের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে এক শ্রেণির দালাল ভিক্ষাবৃত্তি করাচ্ছে। এ সময় অসহায় প্রতিবন্ধী মানুষকে পুনর্বাসনের জন্য সমাজসেবা অধিদপ্তরকে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশের ৬০ হাজার প্রতিবন্ধীকে ভাতা দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া, যে সব শিশু ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করছে তাদের বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসনের জন্য ইউএনডিপির সহায়তায় ২০টি প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশের এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদী রাখা যাবে না। সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পগুলোতে দেড় লাখেরও বেশি ভাসমান মানুষকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। এ সরকার এতিমদের টাকা লুট করে না, প্রতিবন্ধী ও এতিমদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করছে সরকার। এ ছাড়া, পথশিশুদের পুনর্বাসনে ছোটমনি নিবাসের সংখ্যা বৃদ্ধির কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় শেখ হাসিনা আর্থসামাজিক উন্নয়নের প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেন। বক্তৃতায় তিনি পল্লী ও শহর সমাজসেবা কার্যক্রমে তার সরকারের উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ দরিদ্র থাকবে না। আমরা এজন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে সেভাবে এগোচ্ছি। বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হয়।

– See more at: http://www.somoyerkonthosor.com/archives/331048#sthash.pPH4guef.dpuf

পোস্টটি ৩৬৫ বার পঠিত
 ০ টি লাইক
০ টি মন্তব্য

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.