শুধুই ঋণ
লিখেছেন নাসরিন সিমা, মার্চ ১৯, ২০১৫ ৪:১৯ অপরাহ্ণ

images

এখানে তাবৎ রোদের ঝলকানীতে
একটা ভাস্কর্যের প্রতিচ্ছবি
কি দারুণ শৈল্পিক ছোঁয়ায়! বয়ে চলে
স্রোত, ঘুর্ণিঝড়, আর অহর্ণিশ কাকাতুয়ার ডাক,
ঐ সেই ঘ্রাণ, সেই ছুটে চলার কাব্য
থেমে থাকেনা কখনোই।

যখণই হিসেবের গরমিল হয়
ফুলঝুড়ি ভরে দেয় অসংখ্য মিথ্যের সাথে
শতশত আয়ুষ্কাল যেন সময়ের ফ্রেমে আটকা পড়ে থাকে!
বটবৃক্ষের নিরব সাক্ষী,
আকাশের সরব গর্জন
নিমিষেই চাপা পড়ে থাকে শত শত রাক্ষুসী বৃক্ষের বিঁষদাঁতে।

ঐতো ফণিমনসার বিরাট শাখা
জাগ্রত চাতকের তিলতিল করে সহ্য করা অপেক্ষা
তবে কি কানপাতা বাঘের
ঘাড় মটকানো খেলার অবসান ঘটবেনা!
শিয়ালের ধূর্ততার প্রতিরোধ মিথ্যার জালে বন্দী?
গগণ ফাটানো চিৎকার শুনি মধ্যরাতের আঁধারে,
সম্ভ্রম হারানো কোন ষোড়শীর চিতকার!

বিজয় অর্জিত হয় কতিপয় হায়েনার
সহজ হিসাবে যাদের মন ভরেনা
বর্ণীল সত্যে যাদের দৃষ্টি খোলেনা
সেই দিন থেকেই ডানা ঝাপটানো আহত পাখিটির
বিষাদ সমাধী তৈরী হয়েছে সেখানে
আর মুঠোমুঠো ধান ছড়াতে হয়না,
সেখানে শুধুই দিন দিন বাড়ে শোধ অযোগ্য ঋণ,
শুধুই ঋণ!

Comments

comments

পোস্টটি ৪৬৯ বার পঠিত
 ০ টি লাইক
২ টি মন্তব্য