“তোমার ঘরে বসত করে কয়জনা?”
লিখেছেন অর্ফিয়ুস, আগস্ট ১৬, ২০১৪ ১:৩৮ পূর্বাহ্ণ

 

রাস্তার ধারের বিলবোর্ড, লাস্যময়ী এক নারী, শাড়ি পরিহিতা, কাঠের সোফায় গা এলিয়ে শুয়ে আছেন। শরীরভর্তি গয়না। বিজ্ঞাপনটি স্বর্ণকারের না শাড়ির না ফার্ণিচারের সে বুঝে কার সাধ্য? বোঝার প্রয়োজনও নাই সম্ভবত। রাস্তার ছেলেবুড়ো, সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ি ঠেলা সুইপার থেকে শুরু করে প্রাডো গাড়িতে বসা অভিজাত মহিলাটিও এক পলক তাকিয়ে নিচ্ছেন বিলবোর্ডের দিকে। কেউ কেউ পথ ভুলে আইল্যন্ডে দাড়িয়েই পণ্যের নামের সাথে মাথায় গেঁথে নিচ্ছে সে দৃশ্য, মস্তিষ্কের পেছনের দিকে একটি পর্দায় তখন সে দৃশ্যের ব্যবচ্ছেদ শুরু হয়ে গেছে, একনিষ্ঠ দর্শকটির ঝুলে পড়া ঠোঁট আর দাঁড়ানোর ভঙ্গি সে গোপন আদিম ঘটনার সাক্ষী।

আর একটি বিলবোর্ডের গল্প বলি। পাঁচতারা হোটেলের সামনে এমন কায়দায় লাগানো যে, পাশের তিন রাস্তা দিয়ে আসা সব যানবাহন থেকেই দেখা যাবে। উজ্জ্বল রঙ আর লোভনীয় পরিবেশনায় বিলবোর্ডের খাবারগুলোকে মনে হচ্ছে জীবন্ত, এক্ষুণি খাওয়া যাবে।

একটা ঘরে দশ-বারোটি শিশু। কি কারণে একজন আরেকজনের ওপর হেসে গড়িয়ে পড়ছে। রেকর্ড করা ভিডিও কিংবা সরাসরি, যা-ই দেখুন না কেন, সে হাসির ঘনঘটা আপনার ঠোঁটে এসে ছুঁয়ে যাবেই।তাই না?

এখন বলেন দেখি, এই তিনটি দৃশ্য আপনার হৃদয় বা সত্ত্বার তিনটি দিককে উদ্দীপিত করলো কি না! জি, ঠিক ধরেছেন, শারীরবৃত্তীয়ভাবে আপনি এক দেহে ধারণ করেন তিনটি ভিন্ন ভিন্ন পরস্পর স্বাধীন কিন্তু সম্পূরক তিনটি সত্ত্বা। আপনার বুদ্ধিবৃত্তিক (spiritual) সত্ত্বা, শ্রোণীচাক্রিক (pelvic) সত্ত্বা এবং আপনার ভোজনকেন্দ্রিক (abdominal) সত্ত্বা এই তিন মিলেই আপনি। শেষের দুইটিকে একসাথে বলা হয় জৈবিক সত্ত্বা। আপনার প্রতিদিনের প্রয়োজনগুলো এই তিনটি সত্ত্বার জন্যই তৈরী হয়, আপনার প্রতিদিনের কাজগুলো এই তিন সত্ত্বার প্রয়োজনকে ঘিরেই আবর্তিত হয়।

তিনটি সত্ত্বার ধরণ ধারণ কেমন? জৈবিক সত্ত্বা উদ্দীপিত হয় খুব কম সময়ে, এদের প্রয়োজনগুলোও স্বল্পমেয়াদী। যেমন, আপনার ক্ষুধা পেলে আপনি যদি পেটপুরেও খান, কিছুক্ষণ পর আবার খাবারের প্রয়োজনবোধ করবেন। আবার কিছু খেলেই সাথে সাথে এর তাড়না কমে আসবে। সে হিসেবে বুদ্ধিবৃত্তিক সত্বার প্রয়োজনগুলো বেশ জটিল। মজার একটা উদাহরণ দিই। মনে করেন, আপনার প্রিয়জন আপনাকে কোন কারণে কষ্ট দিয়েছে। ঝুম অন্ধকারে একলা বারান্দায় বসে আপনার মনে হতেই পারে, সে আপনার মাথায় এসে হাত রাখুক। আপনার পাশের নিরব অন্ধকারটি দখল করে রাখুক তার ভালোবাসার উষ্ণতায়। কিন্তু যদি সে আসেই? মাথায় হাত রাখা মাত্রই আপনি অভিমানে আরও স্ফীত হয়ে ঠেলে দিলেন তার সে হাত, হয়ত মায়ার, হয়ত ভালোবাসার সেই হাতটি আপনার কষ্টকে গলিয়ে চোখ দিয়ে ঝরিয়ে দিলো তরল রাগ হিসেবে। হতে পারে না এমন?  পারে। বুদ্ধিবৃত্তিক সত্তার প্রয়োজন পূরণ তাই অপেক্ষাকৃত জটিল। কিন্তু সঠিক পরিবেশে এই সত্ত্বা ছাপিয়ে যেতে পারে অন্য সত্ত্বাগুলোর চরম আহ্বানকেও। গভীর ভালোবাসা আর আস্থায় কোন দম্পতি বছরের পর বছর কাটিয়ে দিতে পারেন যৎসামান্য জীবনোপকরণ দিয়ে। যুগের পর যুগ কোন মা সন্তানের পাতে ভালো খাবার তুলে দিয়ে, সবার শেষে নিজে পান্তাভাত খেয়ে সোনালী ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতে পারেন। স্রষ্টাকে পাওয়ার জন্য যুগযুগ ধরে নারীসঙ্গ বিবর্জিত হয়ে একলা থাকেন অনেক সাধু। স্বামীর অবর্তমানে সন্তানের দেখাশোনার জন্য পূনর্বিবাহ নামক স্বস্তিকে অস্বীকার করে বিশাল পৃথিবীর পথে একলা পা বাড়ান কোন অষ্টাদশী বিধবা, সত্তরোর্ধ এইরকম কোন মহিলার ফর্সা কপালের ভাঁজ দেখে তাঁর তারুণ্যের সেই মেঘেঢাকা রৌদ্রের কথা মনে পড়েনি কখনও আপনার? আমি দেখেছি, আর নিজেকেই জিজ্ঞেস করেছি, কী সেই শক্তি? কি সেই প্রেরণা? এ ভালোবাসার শেষ কিসে?

বিজ্ঞাপনের কথায় ফিরে যাই। যে বিজ্ঞাপনটি আপনার যে সত্ত্বাকে উজ্জীবিত করবে, আপনি সে সত্ত্বার তাড়নায় বিজ্ঞাপনের পণ্যটিকে মনে রাখবেন। মনে করেন পণ্যটি একটি ল্যপটপ, যা একান্তই আপনার বুদ্ধিবৃত্তিক সত্ত্বার জন্য দরকার।বিজ্ঞাপন নির্মাতা সে ল্যপটপ হাতে একটি তরুণকে বসিয়ে দিলেন একটি রেস্টুরেন্টের টেবিলে, পাশে ধোঁয়া ওঠা পিজা আর কোকের গ্লাসে বিন্দু বিন্দু পানি জমেছে, আর ওপরে ভাসছে বরফ! একটাই উদ্দেশ্য আপনার একাধিক সত্ত্বাকে অনুরণিত করা। এবং সম্ভবত আপনি তাতে স্পন্দিত হবেনও। যদি পিজা আপনার পছন্দের তালিকায় ওপরের দিকের খাবার হয়, অনেক ব্র্যান্ডের ভীড়ে সেই ব্র্যান্ডের ল্যপটপের নামটি অন্তত আপনার মনে থাকবে। অথবা মনে করেন, গাড়ির শোরুমের উদ্বোধন হচ্ছে। প্রতিটি মডেলের গাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে স্বল্পবসনা কোন সুন্দরী, সহাস্যে আপনাকে অনুরোধ করছে একবার একটু সিটে বসে গাড়িটির উষ্ণতা চেখে নিতে। গাড়ির পরিবেশকরা আশা করছেন, আপনার শরীরে বোধ করা আরামের সাথে সাথে আপনার পেলভিক সত্ত্বার দেয়া ক্ষণিকের উদ্দীপনাটি আপনাকে সাহায্য করবে সেই ব্র্যান্ডটিকে মনে রাখতে।

সুতরাং, আপনি না জানলেও আপনার ভেতরের সত্ত্বাগুলোকে আপনার সমাজ জানে। সেগুলোর ব্যবহার কিংবা ক্ষেত্রবিশেষে অপব্যবহার আপনাকে দিয়েই করিয়ে নিচ্ছে মুনাফালোভীদের দল। ‘’know thyself’’ স্লোগানটি এক্ষেত্রে আপনাকে দিতে পারে একটি পথের সন্ধান। জীবনের জন্য আপনিও ঠিক করে নিতে পারেন একটি লক্ষ্য; আপনার কোন সত্ত্বাকে আপনি কতখানি পাত্তা দেবেন, কার আহ্বানে কতক্ষণ সাড়া দেবেন। কোন সত্ত্বাটি আপনার বয়সের সাথে সাথে বদলে যায়, আর কার চাহিদা আপনার আয়ুকে পেরিয়ে যাত্রা করতে পারে মহাকালের দিকে। একটি ‘শাহনামা’ বা একটি ‘বিদ্রোহী’ আপনাকে কালের ঘড়িকে ভেঙ্গে দিতে সাহায্য করতে পারে। আবার, আপনার শারিরীক সৌন্দর্যে মুগ্ধ কোন প্রিয়জন আপনার বার্ধক্যে হয়ে উঠতে পারেন আপনার সবচে বড় সমালোচক।

তো? কি ভাবছেন? কি দিয়ে কাছে টানবেন আপনার প্রিয়জনকে? অমর হতে কোন কাজটিকে বেছে নিবেন?

Comments

comments

পোস্টটি ২৮২৮ বার পঠিত
 ১ টি লাইক
১৫ টি মন্তব্য