শিক্ষক যখন ফেসবুকে ব্যস্ত !
লিখেছেন রোমান, আগস্ট ২৪, ২০১৫ ৩:৪৬ অপরাহ্ণ
iuuiyui

ফেসবুক আজকাল শুধু অবসর সময়ের সঙ্গীই নয় আপডেট থাকার প্রয়জনেই যা হয়ে উঠেছে অনেকটা অত্যাবশ্যক! কিন্তু তার পরেও প্রশ্ন থেকে জায় তা কতখন বা কতটা সময় ধরে? তাও আবার যদি হয় শিক্ষকতার মতো কোন পেশায় আমার অবস্থান?

অন্য সবার থেকে শিক্ষকরা আরও বেশী আপডেট থাকবেন বা থাকা উচিৎ এটা যেমন সত্য, নিজেদের সামান্য ভুলের খেসারতে গোটা জাতী যেন অন্ধকারে নিমজ্জিত না হয় তা খিয়াল রাখাটাও আরও বেশী জরুরী।

কিন্তু আজকাল দ্বিতীয় সত্য ভুলে অন্যদের সাথে পাল্লা দিয়ে ফেসবুকে অনেক বেশী ব্যস্ত শিক্ষকরা! অবস্থা এমন হয়েছে যে, মিনিটে ১টা সেলফি আর বার বার ঘুরে ফিরে দেখা কতজন লাইক, কমেন্টস করল! শিক্ষকের পাঠাভ্যাস যে ছাত্রের চাইতেও বেশী হওয়া উচিৎ সে রেওয়াজ তো অধিকাংশই ত্যাগ করেছেন অনেক আগেই! শ্রেণী কক্ষে এসে ছাত্রের বই নিয়ে সামান্য পাঠদানও আর বুজি থাকে না!

শ্রেণী কক্ষে ঢুকেও যখন উনি ফেসবুক চর্চায় ব্যস্ত তখন আর এ যুগের ইঁচড়েপাকা  শিক্ষার্থীর মনোযোগ ধরে রাখে কে? অবস্থা এমন হয়েছে, শিক্ষক হয়ত জাস্ট ট্র্যাডিশন মেইন্টেইন করতে কিছু পড়তে বা লিখতে দিয়ে বসে গেছেন! এদিকে ছাত্রদের অধিকাংশই খোশ গল্প বা চিমটা চিমটিতে ব্যস্ত। দুই একজন কথা মতো কাজ করলেও নিজের যথা সাধ্য চেষ্টায় যা ভুল শিখলেন তা আর শুধরানোর উপায় কই? যাবার প্রাক্কালে শিক্ষক মশায় যে সে ভুলের অপরেই টিক দিয়ে চলে গেলেন!    

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক থেকে এ চিত্র আজ বিশ্ববিদ্যালয়য়ের বড় বড় অধ্যাপকদেরও ! চ্যাটিং এর মতো সময় নষ্ট করা বাজে অভ্যাসও পেয়ে বসেছে অনেকেরই! অবস্থা এমন হয়েছে, নিজের ছাত্র/ ছাত্রীই হয়ত ফেইক আইডি থেকে শ্রেণী কক্ষে বসেই নিজ শিক্ষকের সাথে এসএমএস এর মাধ্যমে  খোশ আলাপ চারিতায় মেতে রেখেছে! কখনো সখনো কয়েকজন মিলে শিক্ষক কে বোকা বানিয়ে নিজেরা মুচকি হাসচে! তবুও মাতাল শিক্ষক যে ঢের বেখবর!

হে শিক্ষক মহোদয়, তোমাকে নিশ্চয় কেও জোর করে এ পেশায় নিয়ে আসেনি। স্বেচ্ছায় মানুষ গড়ার মহতী উদ্দেশেই হয়ত তোমার এ পথে যাত্রা! তোমাকে ভুলে গেলে চলবে না, দুনিয়ার কঠিনতম কাজ গুলোর অন্যতম কাজটিই তুমি হাতে নিয়েছ। মানুষ কে মানুষ বানানোর মতো এমন জটিল সমীকরণ আর কি হতে পারে আমার জানা নাই। তাই তোমার সামান্য ভুলের কারনে এমন গুরুত্বপূর্ণ সম্মান ও মর্যাদার আসন কে যেমন কলঙ্কিত করা উচিৎ হবেনা, ঠিক হবেনা আগামির ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ফাকি দিয়ে গোটা দেশ ও জাতিকেই অন্ধকারে নিমজ্জিত করা। 

পোস্টটি ৩৩০ বার পঠিত
 ০ টি লাইক
০ টি মন্তব্য

Leave a Reply

Be the First to Comment!

Notify of
wpDiscuz