পারষ্পারিক বোঝাপড়া যেখানে ব্যর্থ!
লিখেছেন FM97, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৫ ৩:৩৭ অপরাহ্ণ

পরিবারে একসাথে থাকতে যে কাজটা গুরুত্বপূর্ণ তাহলো পারষ্পারিক বোঝাপড়া বা সমঝোতা। যদিও এই কাজটা অনেক কঠিন। কারণ- সমঝোতায় পৌঁছার প্রথম শর্তেই আমরা পরাজিত। আর সে শর্তটা হচ্ছে- অপরপক্ষকে মত প্রকাশের স্বাধীনতা দেয়া। অপরপক্ষ স্বাধীনভাবে, নির্ভয়ে, ভরসা পেয়ে যাতে নিজের কথা শেয়ার করতে পারে- সেই পরিবেশ তাকে দেয়া। যাতে তাকে বুঝতে সুবিধা হয়।

 

কিন্তু আমরা যদি আমাদের মানসিকতা, আমাদের পরিবেশ এমনভাবে গড়ে রাখি যাতে অপরব্যক্তি ভুল বুঝাবুঝির আশঙ্কায়, ভরসা নয় বরং বিরূপ আচরণ পাওয়ার আতঙ্কে থাকে, পরাধীনতা অনুভব করে- তখন অপরজন কখনোই নিঃসঙ্কোচে নিজের মত প্রকাশ করবে না। ফলে পরষ্পরকে বুঝার পর্বটা যেখানে স্তব্ধ সেখানে সুন্দর পরিবেশ ও সমঝোতায় উৎফুল্লভাবে সাড়া দেয়ার প্রবণতাও হয়ে যায় ক্ষীণ। কিংবা হতে পারে বোঝাপড়ার বিষয়টা হয়ে যায় একপেশে, বেপরোয়া হয়ে যায় অপরপক্ষ…

পোস্টটি ৩৪৫ বার পঠিত
 ১ টি লাইক
৪ টি মন্তব্য
৪ টি মন্তব্য করা হয়েছে
  1. সুন্দর পরিবেশ ও সমঝোতায় উৎফুল্লভাবে সাড়া দেয়ার প্রবণতাও হয়ে যায় ক্ষীণ। কিংবা হতে পারে বোঝাপড়ার বিষয়টা হয়ে যায় একপেশে, বেপরোয়া হয়ে যায় অপরপক্ষ… সহমত।

  2. পারষ্পারিক বোঝাপড়া ভিত্তিক পরিবেশ সৃষ্টি করা অনেক কঠিন হলেও সুন্দর জীবনের জন্য এর বিকল্প নেই।

  3. পরিবারে পারস্পারিক বোঝাপড়া টা যখন এক পাক্ষিক হয় তখন তিক্তটা একসাথে থাকা সত্ত্বেও দূরত্বই ধরে রাখে!

  4. শুধু পরিবারে নয় যেকোন ধরনের ব্যক্তিগত, পারিবারিক বা সাংগঠনিক সম্পর্কের জন্যই স্বাধীন ভাবে কথা বলার স্বাধীনতা গুরুত্বপূর্ণ।

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.