কিশমিশের যত গুন!
লিখেছেন চক সিলেট, জুলাই ২২, ২০১৪ ৯:৪৩ অপরাহ্ণ

আদিকাল থেকে মানুষ খাবারের সাথে কিশমিশ ব্যবহার করে আসছে শুধু মাত্র এর স্বাদের কারনেই নয়। বরং কিশমিশের রয়েছে নানাবিধ গুন এবং দেহের জন্য অনস্বীকার্য কিছু অবদান। চলুন জেনে নেয়া যাক এর কিছু গুনের কথা।

✬ রক্তশূন্যতা দূর করেঃ-

রক্তশূন্যতার কারণে অবসাদ, শারীরিক দুর্বলতা, বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যতে পারে; এমনকি, বিষণ্ণতাও দেখা দিতে পারে। কিশমিশে আছে, প্রচুর পরিমাণে লৌহ উপাদান, যা রক্তশূন্যতা দূর করতে সাহায্য করে।

✬ হাড়ের জন্য উপকারিঃ-
বর্তমানে সময়ে অনেক রুগী অস্টিওপরোসিস (হাড়ের একধরনের রোগ) আক্রান্ত হচ্ছেন। বোরন নামক খনিজ পদার্থের অভাবে এই রোগ হয়। কিশমিশে আছে প্রচুর পরিমাণ বোরন, যা অস্টিওপরোসিস রোগের প্রতিরোধক।

✬ এসিডিটি কমায়:-
রক্তে অধিক মাত্রায় এসিডিটি (অম্লতা) বা টক্সিসিটি (বিষ উপাদান) থাকলে, তাকে বলা হয়, এসিডোসিস। এসিডোসিসের (রক্তে অম্লাধিক্য) কারণে বাত, চর্মরোগ, হৃদরোগ ও ক্যান্সার হতে পারে। কিশমিশ রক্তের এসিডিটি কমায়।
কিশমিশে আছে প্রচুর পরিমাণে

✬ আঁশ:-
খাবারে প্রচুর পরিমাণ আঁশ থাকলে কোলোরেক্টারাল ক্যান্সার ঝুঁকি কমে যায়। এক টেবিল চামচ কিশমিশ ১ গ্রাম পরিমাণ আঁশ থাকে।

✬ চোখের জন্য উপকারিঃ-
আপনি কি জানেন, প্রতিদিন কিশমিশ খেলে বৃদ্ধ বয়সে অন্ধত্ব থেকে রক্ষা পাওয়া যায়? কিশমিশে আছে প্রচুর পরিমাণ, এন্টি-অক্সিডেন্ট, যা অন্ধত্ব প্রতিরোধ করে।

✬ কিশমিশে আছে এন্টি কোলেস্ট্রোরেল উপাদান:-
কিশমিশে কোন কোলেস্ট্রোরেল নাই–এটাই বড় কথা না। বরং কিশমিশে আছে এন্টি-কোলোস্ট্রোরেল উপাদান যা রক্তের খারাপ কোলোস্ট্রোরেলকেহ্রাস করতে সাহায্য করে। কিশমিশের দ্রবণীয় আশ, লিভার থেকে কোলোস্ট্রোরেল দূর করতে সাহায্য করে। এক কাপ কিশমিশে আছে ৪ গ্রাম পরিমাণ দ্রবণীয় আঁশ।পলিফেনল নামক এন্টি-অক্সিডেন্টও কোলোস্ট্রোরেল শোষণকারী এনজাইমকে নিয়ন্ত্রণ করে।

✬ মস্তিষ্কের খাদ্য:-
কিশমিশের মধ্যে থাকা বোরন খনিজ পদার্থটি মস্তিষ্কের জন্য খুবই উপকারী, যা মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতার জন্য অত্যাবশ্যকীয় উপাদান। বোরন মস্তিষ্কের কি উপকার করে? এটা মনোযোগ বাড়াতে সাহায্য করে, হাত ও চোখের মধ্যে সমন্বয়কে বৃদ্ধি করে এবং স্মৃতিশক্তি বাড়ায়।

✬ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে:-
কিশমিশ শুধুমাত্র রক্তের মধ্যে থাকা বিষোপাদান কমায় তাই না, বরং রক্তচাপও কমায়। কিশমিশের প্রধান উপাদান, পটাশিয়াম, রক্তের চাপ কমাতে সাহায্য করে। শরীরে থাকা উচ্চমাত্রার সোডিয়াম, রক্তচাপ বাড়ার প্রধান কারণ। কিশমিশ শরীরের সোডিয়াম মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে।

সূত্রঃ ইন্টারনেট।

পোস্টটি ১৪৭২ বার পঠিত
 ৩ টি লাইক
৮ টি মন্তব্য
৮ টি মন্তব্য করা হয়েছে
  1. ধন্যবাদ পোষ্টের জন্য :)

  2. নতুন করে কিশমিশের অনেক গুনের কথা জানলাম। ধন্যবাদ!

  3. আমি তো কিশমিশ এমনি এমনি খাই :P !

  4. আমিও এমনি এমনি খাই। ছোটবেলায় আমার পেট ব্যথা হইতো,আম্মু জিগেস করতো, কি খেতে হবে? আমি নাকি নির্বিকারচিত্তে বলতাম, কিসমিস!
    দুনিয়া যে গোল, তার প্রমাণ হল, আমার মেয়েরও এখন এমন পেটে ব্যথা করে!!!

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.