সারার ফিরে আসা, মৃত্যু এবং কিছু কথা…
লিখেছেন আহমাদ আল-সাবা, অক্টোবর ১৯, ২০১৫ ৬:০৫ অপরাহ্ণ
sarah

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম 

তিন দিন আগে আমর খালেদ অস্ট্রেলিয়ার এক তরুণীর কাছ থেকে একটি মেইল পেলেন। মেইলটি ছিল এরকমঃ আমিএক লেবানীজ তরুণী,আমার পিতা মুসলমান এবং আমার মা খ্রীস্টান। আমার জীবনের প্রথম দশ বছর আমি লেবাননে কাটিয়েছি; তারপর আমরা অস্ট্রেলিয়াতে চলে যাই এবং সেখানেই থাকা শুরু করি ।আর এভাবেই মধ্যপ্রাচ্যের সাথে আমার সম্পর্কের ইতি ঘটে। বর্তমানে আমার বয়স ২২,আর অস্ট্রেলিয়াতে মাইগ্রেসন করার পর ধর্মের সাথে আমার সম্পর্ক পুরোপুরি ছিন্ন হয়ে যায়। আমি শুধু এতটুকু জানি আমি একজন মুসলিমাহ্‌,ব্যাস এতটুকুই। আমি জানি না কোরআন কেমন, জানি না কিভাবে নামাজ পড়তে হয়, মোট কথা আমার জীবনে ধর্মের কোন গুরুত্বই নেই। আমার মা-বাবা পৃথক হয়ে গেছে এবং তারা দুজনই অন্য কারো সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে। আমি ইউনিভার্সিটিতে লেখা-পড়া করছি। আমার মা-বাবা আমাকে একা ফেলে অস্ট্রেলিয়া ত্যাগ করে চলে গেছেন। কিন্তুআমার না আছে কোন পরিবার,না কোন ভাই অথবা বোন।আমি আমার লেবাননের পূর্বপরুষদের সম্পর্কে কিছুই জানিনা। আমি একাই সেখানে বাস করছিলাম আর এভাবেই আমার জীবন কাটছিল। আমি সকালে ইউনিভার্সিটিতে যেতাম আর বিকালে একটি বারে কাজ করতাম। আমার একজন বয়ফ্রেন্ড আছে। এমন কোন হারাম কাজ নেই যা আমি করিনি, তাতে আমি কোন লজ্জাও বোধ করতাম না। আমি এখন পুরোপুরি ওয়েস্টার্ন। আমি খুব সামান্যই আরবী জানি। যেহেতু আমি খুবই সুন্দর তাই আমি নিউজিল্যান্ডে সুন্দরী প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করি এবং তাতে আমি জয়ী হই। আমি নিউজিল্যান্ডের বিয়ার প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করার পরিকল্পনা করছি, বর্তমানে আমি ম্যাগাজিনে মডেলিং করি। এই সময়গুলোতে আমি অস্ট্রেলিয়াতে বসবাসরত একটি লেবানীজ পরিবারে বেড়াতে যেতাম। একদিন আমি টেলিভিশনে রমজানের একটি অনুষ্ঠান দেখলাম, সেখানে শিষ্টতা এবং শালীনতা সম্পর্কে বলা হয়েছিল আর তাতে অনুষ্ঠানটির ওয়েব এড্রেসও দেখানো হয়েছিল। তখন আমি এক অসস্তিকর সময় পার করছিলাম, কারণ আমার মনে হচ্ছিল অনুষ্ঠানটি সরাসরি আমাকে সম্বোধন করছে। আমি আপনার কাছে জানতে চাই আল্লাহ্‌ কী আমাকে গ্রহণ করবেন অন্যকথায় আমাকে মাফ করবেন? তা জানার জন্যই আমি আপনাকে মেইলটি পাঠালাম। সারার মেইলটি এখানেই শেষ। সুবহানাল্লাহ্‌! একজন মানুষের ঈমান যত ছোটই হোক, একজন মানুষের আত্মা সবসময়ই আল্লাহ্‌র জন্য ক্ষুধার্ত থাকেযেমন ক্ষুধার্ত থাকে পেট খাবারেরজন্য। যাই হোক মিসরীর ইসলাম প্রচারক আমর খালেদ সারার মেইলের জবাব দিলেন। তিনি তওবার শর্তাবলী উল্লেখ করলেন আর সারাকে আশ্বাদ দিলেন, যদি সে সত্যিকার অর্থেই তওবা করে তাহলে অবশ্যই আল্লাহ্‌ তাকে ক্ষমাকরবেন। দু দিন পর সারা আমরখালেদের সাথে যোগাযোগ করে বললঃ আমি আল্লাহ্‌র কাছে তওবা করেছি, আমার বয়ফ্রেন্ডকে ত্যাগ করেছি, ওয়াদা করেছি তার সাথে আর কখনো দেখা করব না। এর দু দিন পর সে আবার আমর খালেদের সাথে যোগাযোগ করে বললঃ কিভাবে নামাজ পড়তে হয় তা আমি শিখতে চাই। দু দিন পার হওয়ার পর সে আবার জানালঃ আমার কোরআন শরীফের কিছু অডিও টেপ প্রয়োজন। তাই আমর খালেদ DHL কোরিয়ার মাধ্যমে তাকে কিছু টেপ পাঠালেন। এক সপ্তাহ পার হয়ে গেল কিন্তু আমর খালেদ সারার কোন সংবাদ পেলেন না। তারপর সারা তাকে জানাল সে তার সুন্দরী প্রতিযোগীতার টাইটেল ফেরত দিয়েদিয়েছে। এরপরআসল আসল চমক,সারা আমর খালেদের যোগাযোগ করে জানালঃ আমি হিজাব পরা শুরু করেছি। যাইহোক ঘটনা এখানেই শেষ নয়; হিজাব পরিধান করার দুদিন পর সে তীব্র ব্যাথা অনুভব করল। সে ডাক্তারের কাছে গেল,ডাক্তার রোগ নির্ণয় করে জানাল সারার ব্রেন ক্যান্সার হয়েছে। ডাক্তার আরোও বলল, সে আর কিছুদিন বেঁচে থাকতে পারবে।ডাক্তার তাকে অপারেশনের জন্য হাসপাতালে ভর্তি হতে বলল,আর সারাকে জানাল অস্ট্রেলিয়াতে তার অপারেশনের সাফল্যের সম্ভাবনা মাত্র ২০%। ডাক্তার থেকে এ তথ্য পেয়ে সারা আমর খালেদকে বললঃ আল্লাহ্‌র সাথে সাক্ষাত হবেতাতে আমি আনন্দিত। আমি সুখী এজন্য যে,আমি আমার অসুস্থতার পূর্বেই তওবা করতে পেরেছি। আমি জানিনা আমার মা-বাবা কোথায় আছে, তারাতো আমার অবস্থা সম্পর্কে কিছুই জানবে না। যদি আমি বেঁচে থাকি তাহলে আমি আপনার ওয়েবসাইটকে সমর্থন করে যাব,কারণ তা ছিল আমার জন্য ইসলামের জানালা। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন। সারা ২২ বছর বয়সে মারা গেল। আল্লাহ যেন তাকে তাঁর রহমতের কোলে টেনে নেয়।আমীন তারা সারাকে নিউজিল্যান্ডের এক মুসলিম কবরস্থানে সমাহিত করেছে। মারা যাওয়ার পূর্বে সারা আমর খালেদের কাছে একটি ছোট্ট পত্র পাঠিয়েছিল যাতে লেখা ছিলঃ আমি আমার প্রভু থেকে ২২টি বছর দূরে ছিলাম,আমি অনুতপ্ত হয়েছি,তওবা করেছি। আমি মাত্রতিন সপ্তাহ আগে আল্লাহ্‌র দিকে ফিরে আসলাম।আমি আপনাকে আর এই ইন্টারনেট ফোরাম ছাড়া খুব বেশী মুসলমানকে চিনি না ,জানি না। আমি আপনার কাছে দোয়ার জন্য অনুরোধ করছি। আল্লাহ্‌ যেন আমাকে দয়া করেন,মাফ করে দেন। আমার মা যেন সঠিক পথ পায় সে জন্যও দোয়া করিয়েন,সে তো আমার সম্পর্কে কিছুই জানল না। ইতি সারা অনূদিত শেষ সময়ে সারা অনুতপ্ত হয়ে বেচে গেল, আমরা কি তার মত এমন সৌভাগ্যবান ? আমরা কি সেই সুযোগ টা পাব ? আল্লাহ আমাদের গ্রহন করুন, আমীন।

 

সারাহর বিস্তারিত ঘটনাটি দেখুন ড. আমর খালেদের নিজ মুখে – https://www.youtube.com/watch?v=k5jOTVi424I

 

কে এই আমর খালেদ? 

 

The 500 most Influential Muslims, 2011 অনুযায়ী The Top 50 এর ২১ তম। The New York Times Magazine এর ২০০৬ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী তিনি আরববিশ্বের “The world’s most famous and influential Muslim television preacher” এবং তাকে টাইম ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালীদের একজন (১৩তম) হিসেবে বর্ণনা করেছেন। ২০০৮ সালের উন্মুক্ত নির্বাচনে Prospect Magazine (UK) and Foreign Policy (United States) অনুযায়ী বিশ্বের ১০০ জন পাবলিক বুদ্ধিজীবীর মাঝে তিনি ৬ষ্ঠ তম হন। টাইম ম্যাগাজিন তাকে  “Rock star for the Arab world” বলে অভিহিত করেছেন।

 

তার সম্পর্কে জানুন বিস্তারিত –

ড. আমর খালেদঃ আরব বিশ্বে ইসলামী নবজাগরণে তরূণদের আলোক প্রদ্বীপ

http://tinyurl.com/q8ha5zl

পোস্টটি ৪০৫ বার পঠিত
 ১ টি লাইক
০ টি মন্তব্য

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.