পুরুষ রচিত ইতিহাস নারীর প্রাপ্য মূল্যটি সঠিকভাবে দেয়নি
লিখেছেন আলোকিত প্রদীপ, নভেম্বর ২৪, ২০১৬ ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ
abu-mohayy

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রয়াত শিক্ষক ও ইতিহাসবিদ আবু মহামেদ হবিবুল্লাহর স্মরণে “আবু মহামেদ হবিবুল্লাহ স্মারক বক্তৃতা ২০১৬” অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত এ অনুষ্ঠানটি বুধবার  বিকাল চারটায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদের সভাপতি ও ভাষা সৈনিক জাতীয় অধ্যাপক ড. সুফিয়া আহমেদের সভাপতিত্বে “ইতিহাসের পথযাত্রায় নারীর প্রতিরোধ” শিরোনামে স্মারক বক্তৃতা প্রদান করেন কথা সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদের যুগ্ম কোষাধ্যক্ষ মিসেস নুসরাত ফাতেমা আবু মহামেদ হবিবুল্লাহর পরিচয় ও বর্ণাঢ্য জীবনী সংক্ষিপ্ত আকারে  তুলে ধরেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক সুরাইয়া আক্তার সেলিনা হোসেনের সংক্ষিপ্ত জীবনী পাঠ করার পর স্মারক বক্তৃতাটি পাঠ করা হয়। সমাপনী ভাষণ প্রদান করেন জাতীয় অধ্যাপক ড. সুফিয়া আহমেদ। বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক জনাব মো. আব্দুর রহীমের কৃতজ্ঞতা প্রকাশের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে। এখানে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান সহ বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদের সদস্যবৃন্দ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষকগণ এবং অন্যান্য অতিথি।

abu mohaস্মারক বক্তা সেলিনা হোসেন বলেন, “পুরুষ রচিত ইতিহাস নারীর প্রাপ্য মূল্যটি সঠিকভাবে দেয়নি। সমতার জায়গায় নারীর অবস্থান নির্ধারিত না হলে ইতিহাসের সত্যে ঘাটতি থাকে, এ কথা কাউকেই স্পষ্ট করে বলার অপেক্ষা রাখে না। তবু নারীর ক্ষেত্রে এমন দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতেই থাকে।”

তিনি ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলীতে নারীর অবদান ও অংশগ্রহণ উল্লেখ করেন। তিনি তুলে ধরেন  ভাষা আন্দোলনে ঘরে ও বাইরে নারীর সাহসী অংশগ্রহণ, বিদেশী দাসত্ব শৃঙ্খল থেকে মুক্ত হতে প্রীতিলতা ও সাবিত্রিরা কীভাবে ইতিহাসের অংশ হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রী লীলা নাগের দৃঢ়তায় কীভাবে সহশিক্ষার পথ খুলে যায়, তেভাগা আন্দোলনের নেত্রী ইলা মিত্র কীভাবে প্রবল নির্যাতন সহ্য করেন, ষাটের দশকের রাজনীতিতে বঙ্গবন্ধু পত্নী ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ভূমিকা সহ অন্যান্য নারীরা কীভাবে ইতিহাসের পথযাত্রায় অবদান রেখেছেন। সেলিনা হোসেন আরও বলেনঃ “ইতিহাসের এই ভূমিকা সমাজ বদলের হাতিয়ার হিসেবে কাজ করেছে। ইতিহাসের প্রতিটি পদক্ষেপে নারীর এই ভূমিকা পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ঠিকমতো মূল্যায়ন করেনি।”

পোস্টটি ৪০৬ বার পঠিত
 ০ টি লাইক
০ টি মন্তব্য

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.