তিশির গুনাগুন
লিখেছেন অঘটন ঘটন পটীয়সী, আগস্ট ২১, ২০১৬ ২:৫৭ পূর্বাহ্ণ
flaxseeds (1)

Flax seeds বা তিশি হচ্ছে একটি আঁশ সমৃদ্ধ,প্রোটিন,ক্যলসিয়াম,এন্টি অক্সিডেন্টস,ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড এবং মিনারেলের একটি অসাধারণ সমন্বয়।এটা ভিটামিন বি কপ্লেক্স,মেঙ্গানিজ ও ম্যাগনেসিয়াম প্রচুর পরিমাণে থাকে।তিশি আমাদের শরীরে এন্টি অক্সিডেন্টের কাজ করে,দেহকে শক্তিশালী রাখে এবং সহজে ক্লান্ত হতে দেয় না।

তিশির উপকারিতাঃ

·         শরীরের দূষিত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে।খাদ্য হজমে সহায়তা করে।অতিরিক্ত মেদ কমায়।

·         তিশির মধ্যে থাকা এন্টি অক্সিডেন্ট ব্লাড ক্যান্সার,ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

·         গ্যাস্ট্রিক ও আলসার দূর করে এবং এস্তেমা থেকে রক্ষা করে।

·         যারা তামাক বা অন্য নেশায় আক্রান্ত থাকে তাদের জন্য তিশি খুবই উপকারী।এটি নেশা জাতীয় দ্রব্য থেকে মুক্তি দিতে হবে।প্রতিদিন খাওয়ার পর অল্প পরিমাণ তিশি চাবালে দ্রুত নেশা থেকে মুক্তি পেতে পারেন একজন রোগী।

·         যারা হাই ব্লাড প্রেশারের রোগী তারা তাদের খাদ্য তালিকায় তিশি রাখতে পারেন।প্রতিদিন ২চামচ তিশির পাউডার এর জন্য যথেষ্ট।এর ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড ও এমাইনো এসিড বিপি কমাতে সহায়তা করে।

·         তিশি আমাদের হৃদপিন্ডকে সবল রাখতে কাজ করে।হার্টে ব্লক বা ইরেগুলার হার্টবিট রোধ করতেও অনেক সাহায্য করে।

·         গবেষণা থেকে জানা গেছে,FLAX SEEDS আমাদের শরীরের HDL গুড কোলেস্টোরাল কে বাড়ায় এবং  খারাপ কোলেস্টোরালকে কমায়।অর্থাত এটি আমাদের কোলেস্টোরালকে নিয়ন্ত্রণ করে।

·         যারা ডায়াবেটিসের রোগী তাদের ইনসুলিন নেয়ার প্রয়োজন নেই যদি এই তিশি সেবন করে থাকেন দৈনিক অন্তত ১৫-২০গ্রাম তিশি।আর যাদের ডায়াবেটিস নেই তারা যদি এটি গ্রহণ করে তবে তাদের ডায়াবেটিস হউয়ার ঝুঁকি কম থাকে।

·         তিশি আমাদের হতাশা ও দুশ্চিন্তা দূর করে।মেজাজ ফুরফুরে রাখে।

·         এটি আমাদের শরীরের ক্যলসিয়াম লেভেল বাড়ায়।ফলে হাড় ও শরীরের জয়েন্টগুলো সুস্থ্য থাকে।ফলে বৃদ্ধ বয়সে হাড্ডিজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

·         তিশি বীজ মেয়েদের এবং ছেলেদের fertility বাড়ায়। এমন কি মেনোপোজের সময় ব্যথা দূর করতেও ফ্ল্যক্স সিডস অনেক উপকারী।

·         ফ্ল্যক্স সিডস আমাদের চুল ও ত্বকের জন্য অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি শস্য।এটি মুখের বালি রেখা প্রতিরোধ করে,চুল পরা রোধ করে,ত্বককে মসৃণ রাখে,ত্বক উজ্জ্বল রাখে,যৌবন ধরে রাখে।এটি ব্রণ ও যেকোন চামড়া জাতীয় রোগ প্রতিরোধ করে।এটি মাথায় খুশকি হতে দেয় না এবং মাথার ত্বকের ময়েশ্চারাইজার ঠিক রাখে।

 

তিশি খাওয়ার কিছু নিয়মঃ

 

·        তিশিকে খাওয়ার জন্য একে টেলে নিতে হবে।এবং এটির পাওডার তৈরী করতে হবে।

·        প্রতিদিন ঘুমানোর পুর্বে বা সকালের নাস্তার সাথে খেতে হবে।তবে রাতে খেলে এর কার্যকারীতা বেশি হয়।

·        প্রতিদিন ছোট চামচের এক চামচ ফ্ল্যক্স সিডস যথেষ্ট স্বাস্থ্যের জন্য।তবে এর চেয়ে বেশি খেলে ডায়রিয়া বা গেস্ট্রিক হতে পারে।

·        রক্তের গ্রুপের কিছু ব্যপার আছে তিশি খাওয়ার ব্যপারে। যেমনঃ

Blood group A (+) / (-)        =    Yes

Blood groupB (+) / (-)         =    No

Blod group O (+) / (-)          =   Yes

Blood group AB (+) / (-)      =     No/Yes

·        তিশি দিয়ে খুব মজাদার ভর্তা বানানো যায়।এক্ষেত্রে রোস্টেড তিশিকে লবন,মরিচ ও পেয়াজ দিয়ে বেটে নেয়া যায়।

·        কোন জটিল রোগ থাকলে এটি খাওয়া ঠিক হবে না।

তিশি একটি নেয়ামত বলা চলে।প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় এই খাবার নিয়মিত রাখা যায়।

 

 

পোস্টটি ১০৮৬ বার পঠিত
 ১ টি লাইক
৩ টি মন্তব্য
৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে
  1. ধন্যবাদ উপকারী তথ্যের জন্য। আচ্ছা, এটা বাজারে কি তিশি নামেই প্রচলিত? আর ব্লাড গ্রুপের ব্যপারটা কেমন?

  2. জীবনেও তিশি খাই নাই… :(

  3. এত কিছু মাথায় রেখে তিসি খেতে হবে! ভাবতেই মাথা ভনভন!

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.